সংবিধানের ধারা ২৪৩ - ৩৭০


     
পঞ্চায়েত (ধারা 243-243 O
  • 243 পঞ্চায়েতের সংজ্ঞা।
  • 243 গ্রাম সভা।
  • 243পঞ্চায়েতের গঠন।
  • 243 পঞ্চায়েতের আসন সংরক্ষন।
  • 243পঞ্চায়েতের সদস্যদের যোগ্যতা।
  • 243পঞ্চায়েতের নির্বাচন পদ্ধতি ও বিষয়।
  • 243N পঞ্চায়েতের আইনকানুন।



  পৌরব্যবস্থা (Municipalities)               
        (ধারা  243P-243ZG)
  • 243P পৌরব্যবস্থার সংজ্ঞা।
  • 243W পৌরসভার ক্ষমতা, কর্তৃত্ব ও দায়িত্বসমূহ।
  • 243ZA পৌরসভার নির্বাচন।


        তপশিল ও উপজাতিভুক্ত অঞ্চল               
              (ধারা 244-244A)
  • 244 তপশিলভুক্ত ও উপজাতিভুক্ত অঞ্চলগুলির জন্য বিশেষ প্রশাসনিক
                              ব্যবস্থা গ্রহণ।

                      
         কেন্দ্র-রাজ্যের মধ্য আইনগত সম্পর্ক               
        (ধারা 245-255)
  • 245    পার্লামেন্ট ও রাজ্য আইনসভা আইন প্রণয়নে এক্তিয়ার।
  • 251 জাতীয় স্বার্থে এবং জরুরী অবস্থায় পার্লামেন্ট প্রণীত কোনো আইনের সঙ্গে
                       কোনো রাজ্য আইনসভার আইনের অসঙ্গতি হলে পার্লামেন্ট এর আইনই বলবৎ
         হবে এবং পার্লামেন্টের আইন বলবৎ থাকাকালীন সময় রাজ্য আইনের
         অসঙ্গতিপূর্ণ অংশ প্রযুক্ত হবে না।
  • 252 দুই বা ততোধিক রাজ্য আইনসভা প্রস্তাব গ্রহনের মাধ্যমে অনুরোধ করলে
                 পার্লামেন্ট রাজ্য তালিকাভুক্ত নির্দিষ্ট কোনো বিষয়ে স্বাভাবিক অবস্থাতেও
         আইন প্রনয়ন করতে পারেন।


         কেন্দ্র-রাজ্যের মধ্য প্রশাসনিক  সম্পর্ক               
        (ধারা 256-263)
  • 256   কেন্দ্রীয় সরকার ও রাজ্য সরকারগুলি প্রশাসনিক এক্তিয়ার। প্রয়োজনে কেন্দ্রীয়
                        সরকার রাজ্যসরকারগুলিকে যেকোনো নির্দেশ দিতে পারে।
  • 257 কতকগুলি নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে কিন্দ্রীয় সরকার রাজ্য সরকারগুলির উপর নিয়ন্রন
                        আরোপ করতে পারে।
  • 261 কেন্দ্র ও রাজ্যর প্রশাসনিক সম্পর্ক।
  • 262 আন্তঃরাজ্যের নদী ও নদী উপত্যকাগুলিকে নিয়ে বিভিন্ন রাজ্যের মধ্যে বিরোধ
  ধারা         যে সকল বিষয় অন্তর্ভুক্ত
           মিমাংসার জন্য পার্লামেন্ট আইন প্রণয়ন করতে পারে।
  • 263  আন্তঃরাজ্য পরিসদ গঠন।


       কেন্দ্র-রাজ্যের মধ্য আর্থিক সম্পর্ক               
(Center-State Financial Relations) (ধারা 264-293)
  • 264           কেন্দ্র ও রাজ্যের মধ্যে আর্থিক সম্পর্কের ব্যাখ্যা।
  • 268 কতগুলি কর আছে যা আরোপ করে কেন্দ্রে, কিন্তু সংগ্রহ ও ভোগ করে
                            রাজ্যগুলি। স্ট্যাম্প কর, ঔষধপত্র ও প্রসাধন সামগ্রীর ওপর কর এই শ্রেনির
          অন্তর্ভুক্ত। তবে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে এই কর ধার্য ও সংগ্রহ করে কেন্দ্র।
  • 269      কতগুলি কর আরোপ ও সংগ্রহ করে কেন্দ্র কিন্তু সংগৃহীত অর্থ রাজ্যগুলির
                          মধ্যে বণ্টন করা হয়। এই বণ্টনের নীতি নির্ধারিত হয় পার্লামেন্ট প্রণীত
         আইনের মাধ্যমে। অ-কৃষি সম্পত্তির উপর উত্তরাধিকার কর সম্পত্তি কর,
         সংবাদপত্র অ বিজ্ঞাপনের উপর কর প্রভৃতি এই শ্রেনি অন্তর্ভুক্ত।
  • 270   কতকগুলি কর আছে যা কেন্দ্রীয় সরকার আরোপ ও সংগ্রহ করে, কিন্তু
                        সংগৃহীত অর্থ কেন্দ্র ও রাজ্যগুলির মধ্যে বন্টিত হয়। আয়কর ও উৎপাদন
         শুল্ক এই শ্রেনির কর।
  • 274 কর সম্পর্কিত সেইসব বিল উত্থাপনের ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতির পূর্ণ অনুমতি গ্রহণ
                       আবশ্যক যে সব বিল রাজ্যের স্বার্থের সঙ্গে জড়িত।
  • 275 নির্দিষ্ট কতকগুলি রাজ্যকে কেন্দ্রের আর্থিক অনুদান প্রদান।
  • 276  বৃত্তি, পেশা, ব্যবসা ও চাকুরির উপর রাজ্য-সরকার কর্তৃক আরোপিত কর।
  • 280 অর্থ কমিশন গঠন ও ভূমিকা।
  • 282 কেন্দ্র ও রাজ্য তাদের সংগৃহীত  রাজস্ব থেকে খরচের ব্য্যভার বহন করে।
                        তবে প্রয়োজনে রাজ্যকে কেন্দ্র অনুদান ও ঋণ প্রদান করতে পারে।
  • 286 রাজ্য সরকার কর্তৃক কর আরোপের উপর নিয়ন্ত্রন। আমদানি বা রপ্তানীর
                        উদ্দেশ্যে ক্রয়-বিক্রয়ের উপর রাজ্য সরকার কোনো বিক্রয় কর ধার্য করতে
         পারবে না।
  • 287 ভারত সরকার বা ভারত সরকারের কোনো সংস্থা যে বিদ্যুৎ ব্যবহার করে
                       পার্লামেন্টের অনুমোদন ছাড়া রাজ্যগুলি তাঁর উপর কোনো বিদ্যুৎ কর আরোপ
         করতে পারবে না।
  • 292 কেন্দ্রীয় সরকার দেশের ভিতর থেকে বা বিদেশ থেকে ঋণ গ্রহণ করতে পারে।
  • 293       রাজ্যগুলি কেবলমাত্র দেশের ভেতর থেকেই ঋণ গ্রহণ করতে পারে।



       সম্পত্তির অধিকার (Right to Property)               
  • 300A আইনস্বীকৃত কর্তৃপক্ষ ছাড়া কোনো ব্যক্তিকে তার সম্পতির অধিকার থেকে
                           বঞ্চিত করা যাবে না। তাই বর্তমানে সম্পতির অধিকার একটি আইন স্বীকৃত
          অধিকার হিসাবে গন্য হয়।


  ব্যাবসা-বানিজ্য ও লেনদেন (Trade, Commerce and Intercourse)              
     ( ধারা 301-307)
  • 302 পার্লামেন্ট ব্যবসা-বাণিজ্য ও যেকোনো লেন্দেনের ওপর প্রয়োজনে নিয়ন্ত্রন
                   আরোপ করতে পারে।
  • 304  অঙ্গরাজ্যগুলির নিজেদের মধ্যে ব্যবসা, বানিজ্য ও লেনদেনের ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয়
                    সরকার কর্তৃক নিয়ন্ত্রন আরোপ।

                                                               
             রাষ্ট্রকৃত্যক (Public Services)            
                            (ধারা 308-314)         
  • 309           কেন্দ্র  ও রাজ্যেসরকারী কর্মচারীদের নিয়োগ ও চকরির শর্তাবলী।
  • 310          কেন্দ্র ও রাজ্যসরকারী কর্মচারীদের চাকরির মেয়াদ বা কার্যকাল।
  • 312A      বিশেষ বিশেষ চাকরির ক্ষেত্রে চাকরির শর্তাদির পরিবর্তন বা বাতিল করার
                            ক্ষমতা পার্লামেন্টের উপর অর্পণ করা হয়েছে।


  রাষ্ট্রকৃত্যক কমিশন (Public Service Commission)            
                        (ধারা 315-323)
  • 315 কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারগুলির জন্য রাষ্ট্রকৃত্যক কমিশন গঠন।


       নির্বাচন (Elections)            
                           (ধারা 324-329A)
  • 324       নির্বাচন পরিচালন, তত্বাবধান ও নিয়ন্ত্রণের জন্য একটি নির্বাচন কমিশন                                                                            
                            (Election Commission) গঠন করা হয়েছে।
  • 325 জাতি, ধর্ম, বর্ণ ও স্ত্রী-পুরুষ নির্বিশেষে প্রত্যেক নাগরিকই নির্বাচন প্রক্রিয়ায় 
                           অংশগ্রহণ   করতে পারবে।
  • 327 কেন্দ্রীয় আইনসভার নির্বাচনের ক্ষেত্রে পার্লামেন্টের ব্যবস্থা গ্রহনের ক্ষমতা।
  • 328 রাজ্যআইনসভার নিরাবচনের ক্ষেত্রে রাজ্য আইনসভার ব্যবস্থা গ্রহনের ক্ষমতা।

                                                                
 তফশিলী জাতি, তফশিলী উপজাতি ও অন্যান্য শ্রেনিগুলি জন্য বিশেষ
সংবিধানিক ব্যবস্থা গ্রহণ   (Special provisions For SCs,STs and
Others) (ধারা 330-338)
  • 330            লোকসভায় তফশিলীজাতি, তফশিলী উপজাতি শ্রেনীদ্বয়ের জন্য আসন সংরক্ষণ।
  • 331  লোকসভায় ইঙ্গ-ভারতীয় সম্প্রদায়ের জন্য দুটি আসন সংরক্ষিত থাকবে।
  • 332 রাজ্যবিধানসভায় (Legislaitve Assembly of State) তফশিলী জাতি,
                         তফশিলী উপজাতি শ্রেনিদ্বয়ের জন্য আসন সংরক্ষন।
  • 333 রাজ্য বিধানসভায় ইঙ্গ-ভারতীয় সম্প্রদায়ের জন্য একটি আসন সংরক্ষন
                         থাকবে।
  • 334 60 বছর পরে আসন সংরক্ষন ও বিশেষ প্রতিনিধিত্বের বাতি করা হবে।
  • 337 ইঙ্গ-ভারতীয় সম্প্রদায়ের উন্নয়নের জন্য বিশেষ শিক্ষামূলক ভাতা প্রদান।


         (Scheduled Areas)
         (ধারা  339-342)
  • 340 পশ্চাৎপদ শ্রেনিগুলির অবস্থা পর্যালোচনার জন্য বিশেষ কমিশন নিয়োগ।
  • 341 তপশিলি জাতির সংঞ্জা।
  • 342 তফশিলি উপজাতির সংঞ্জা।


    সরকারী ভাষা (Official Language)   
    (ধারা 343-351)
  • 343 কেন্দ্রের সরকারী ভাষা।
  • 345 রাজ্যের সরকারী ভাষা বা ভাষাসমূহ।
  • 346 কেন্দ্রের সঙ্গে বা আন্তঃরাজ্য যোগাযোগের ক্ষেত্রে কেন্দ্রের সরকারী ভাষাই
                          ব্যবহার করতে হবে।
  • 348 আদালতের রায়, ডিক্রী বা নির্দেশ জারীর ক্ষেত্রে ইংরেজি ব্যবহার করতে হয়।

  • 350 প্রত্যেক ব্যক্তি প্রচলিত যে কোনো একটি ভাষাই কেন্দ্রীয় বা রাজ্য সরকারের
                            কাছে নিজের অভিযোগ ও তার প্রতিকারের আবেদন জানাতে পারে।
  • 350A প্রথমিক শিক্ষার ক্ষেত্রে মাতৃভাষায় শিক্ষা দান করা যাবে।
  • 351 হিন্দী ভাষার উন্নয়ন ও প্রসারের জন্য কেন্দ্র প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ ও
                             নির্দেশ দিতে পারবে।


   জরুরী অবস্থা সংক্রান্ত ব্যবস্থা (Emergency provisions)   
    (ধারা 352-360)
  • 352             জাতীয় জরুরী (National Emergency)  অবস্থার ঘোষণা।
  • 355        জরুরী অবস্থকালীন সময়ে কেন্দ্রীয় সরকারের কর্তব্য রাজ্যগুলিকে বহিরাক্রমন
                          ও অভ্যন্তরীন গোলযোগের হাত থেকে রক্ষা করা।
  • 356 রাজ্য শাসনতান্ত্রিক অচলাবস্থার ঘোষণা (অঙ্গরাজ্যের রাজ্য সরকারকে বরখাস্ত
                        করতে পারেন) বা রাষ্ট্রপতি শাসন(President’s Rule)
  • 359  রাষ্ট্রপতি বিশেষ ঘোষণাবলে সামগ্রিকভাবে সকল মৌলিক অধিকার স্থগিত
                         রাখতে বা বাতিল করে দিতে পারেন।
  • 360 আর্থিক জরুরী অবস্থার ঘোষণা।
                                                                


   বিবিধ (Miscellaneous)   
    (ধারা 361-368) 
        
  • 365 কেন্দ্রের আইনের সঙ্গে সঙ্গতি বা সামঞ্জস্য রক্ষা করে রাজ্য সরকারগুলিকে আইন
                       প্রনয়ন ও শাসন করতে হবে। নচেৎ রাষ্ট্রপতি শাসন ঘোষিত হবে।
  • 368 পার্লামেন্টের সংবিধান সংশোধন পদ্ধতি।
  •                                                                 
অস্থয়ী ও বিশেষ ব্যবস্থা  (ধারা 369-392)
  • 370       জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ ক্ষমতা। 









                






        








সংবিধানের ধারা ২৪৩ - ৩৭০ সংবিধানের ধারা ২৪৩ - ৩৭০ Reviewed by WisdomApps on August 06, 2018 Rating: 5

No comments:

Powered by Blogger.