এখন থেকে বেসরকারি বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষিকা ও অশিক্ষক কর্মচারীরাও চাকরীক্ষেত্রে সমস্যার সমাধানে হাইকোর্টে বিচার চাইতে পারবেন



কলকাতা: বেসরকারি বিদ্যালয়ের শিক্ষক বা অশিক্ষক কর্মীরাও হাইকোর্টে বিচার চাইতে পারেন না। যেহেতু সেগুলি সরকারি বা সরকার পােষিত নয়। কিন্তু, বিনীতা পটনায়েক পাধি'র মামলায় মঙ্গলবার কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি শেখর ববি শরাফ সাফ জানালেন, শিক্ষার অধিকার আইন ও রাজ্যের ডল্লুবিআরটিই বিধি অনুযায়ী আদালত এমন বিচারপ্রার্থীর অভিযােগের বিচার করতে পারে। সংশ্লিষ্ট সেনা বিদ্যালয়ের আর্জি খারিজ করে দেওয়া এই রায় আগামী দিনে এমন বিদ্যালয়গুলির শিক্ষক ও অশিক্ষক কর্মীদের সামনে মাইল ফলক হিসেবে চিহ্নিত হতে চলেছে।

 পানাগড়ের আর্মি পাবলিক স্কুলের প্রিন্সিপাল হিসেবে তিনি কাজ করছিলেন। এই পদে তাঁর শিক্ষানবিশিকালের মেয়াদ বৃদ্ধিও হয়েছিল। আচমকাই তাঁকে সেখানকার চেয়ারম্যান ছাটাই করেন। এভাবে তাঁর মৌলিক ছাড়াও বিধিবদ্ধ কিছু অধিকারও ছিনিয়ে নেওয়া হয়েছে বলে তিনি হাইকোর্টে অভিযােগ করেন। কিন্তু, বিদ্যালয় তথা কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে দাবি করা হয়, এটি যেহেতু অনুদানহীন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, তাই কোনওভাবেই বিদ্যালয়টিকে সরকারি তকমা তথা পাবলিক বডি বলা যায় না। যদি কোনও অভিযােগ থাকে, তাহলে মামলাকারীকে দেওয়ানি আদালতে যেতে হবে, হাইকোর্টে নয়। জবাবে মামলাকারীর আইনজীবী সােনাল সিনহা জানান, শিক্ষার অধিকার আইন অনুযায়ী রাজ্য যে বিধি তৈরি করেছিল, সেটি রাষ্ট্রপতির সম্মতি পেয়েছে। কলকাতা গেজেটেও তা প্রকাশিত হয়েছে। কিন্তু, সেই সূত্রে কোনও নির্দেশিকা এখনও বেরয়নি। ফলে সেটি এখনও আইন নয়। যদি তা হতাে, তাহলে সেই সূত্রে  মামলাকারী সেই আইন গঠিত কমিশনে [ওয়েস্ট বেঙ্গল অনুযায়ী অ্যাডমিনিষ্ট্রেটিভ (অ্যাডজুটিকেশন অব স্কুল ডিসপিউটস) কমিশন অ্যাক্ট, ২০০৮] বিচার চাইতে পারতেন। সেই সুযােগ না থাকায় এবং সুপ্রিম কোর্টের রায় অনুযায়ী তিনি হাইকোর্টেই বিচার চাইতে পারেন।

 এই প্রেক্ষাপটে আদালত তার অন্তর্বত্তী রায়ে বলেছে, সংবিধান অনুযায়ী বিদ্যালয়টির কাজ বিচারযােগ্য। যেহেতু সেটি শিক্ষার অধিকার আইন অনুযায়ী দায়িত্ব পালন করছে। ফলে ওই বিদ্যালয় ও মামলাকারীর মধ্যে চাকরি সংক্রান্ত যে চুক্তি হয়েছিল, তা এই আদালত খতিয়ে দেখতে পারে। তাই চার সপ্তাহের মধ্যে অভিযুক্ত পক্ষকে হলফনামা দিয়ে অভিযােগের জবাব দিতে হবে। অন্যদিকে, এই মামলার জেরে ওই পদে নতুন যিনি এসেছেন, তাঁর স্বার্থও যেহেতু জড়িয়ে থাকবে, তাই তাঁকেও এই মামলায় যুক্ত করতে হবে। 


তথ্যসূত্রঃ বর্তমান পেপার 

এখন থেকে বেসরকারি বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষিকা ও অশিক্ষক কর্মচারীরাও চাকরীক্ষেত্রে সমস্যার সমাধানে হাইকোর্টে বিচার চাইতে পারবেন এখন থেকে বেসরকারি বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষিকা ও অশিক্ষক কর্মচারীরাও চাকরীক্ষেত্রে সমস্যার সমাধানে হাইকোর্টে বিচার চাইতে পারবেন Reviewed by WisdomApps on জুন ১৬, ২০২১ Rating: 5

কোন মন্তব্য নেই:

Blogger দ্বারা পরিচালিত.